Review

দর্শকের পছন্দের গল্প ‘ভালোলাসার রং থাকেনা’

যারা মানবিক গল্প পছন্দ করেন তাদের জন্যে ‘ভালোবাসার রং থাকেনা’, যারা ভালো গল্পের নাটক খুঁজেন তাদের জন্যে ‘ভালোবাসার রং থাকেনা’, কিংবা নাটকের মাধ্যমে জীবন দর্শন দেখতে চান তাদের জন্যে ‘ভালোবাসার রং থাকেনা’। ঈদুল আযাহা উপলক্ষে প্রচারিত একক নাটক ভালোবাসার রং থাকেনা বানিয়েছেন সাজ্জাদ সুমন ও চিত্রনাট্য লিখেছেন মেজবাহ উদ্দিন সুমন।

সাজ্জাদ সুমন ও মেজবাহ উদ্দিন সুমন জুটির অনেক ভালো মানের নাটক আছে। মায়া নাটকের এওয়ার্ড জিতেছিলেন মেজবাহ উদ্দিন সুমন সে নাটকের পরিচালকও সাজ্জাদ সুমন। এই জুটি আমাদের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির জন্যে বড় পাওয়া।

মানসিকভাবে অসুস্থ মানুষদের প্রতি এদেশের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি রীতিমতো অমানবিক, নিষ্ঠুর এবং আঁতকে ওঠার মতো। এখানে মানসিকভাবে অসুস্থ মানুষদের ‘পাগল’ মনে করা হয়।
কিন্তু কেন? কী দোষ তাদের? তাদের দোষ একটাই। তারা মানসিকভাবে অসুস্থ। অথচ অসুস্থতার উপর কারো নিয়ন্ত্রণ নেই। যেকোনো ব্যক্তি যেকোনো সময় যেকোনো রোগে আক্রান্ত হতে পারে। মানসিক রোগ জ্বর, সর্দি, যক্ষ্মা, টাইফয়েড বা ক্যান্সারের মতোই একটি রোগ।

আমরা ‘ভালোবাসার রং থাকেনা’ নাটকে দেখি মানসিক অসুস্থ মাঝবয়সী ছেলেকে। যাকে পায়ে শিকল দিয়ে বেধে রাখা হয়। যে মাঝেমধ্যে শিকল ছাড়া পেয়ে এদিকওদিক চলে যায়। তার পৃথিবীটা ছোট সে পাখির মতো আকাশে উড়তে চায়। সে চায়, একটি মুক্তজীবন।

মানসিক অসুস্থ রুগীর চরিত্রে আফরান অনবদ্য অভিনয় করেছেন। অভিনয় দেখে মনে হয়নি যে, সে অভিনয় করছেন। আপনাআপনি গল্পের চরিত্রের সঙ্গে মিশে গেছেন। যেটা কেবলই একজন নিখুঁত অভিনেতার পক্ষে সম্ভব। আর সে অভিনয়টা বের করতে পেরেছেন সাজ্জাদ সুমন। তানজিন তিশার সাবলীল অভিনয় ভালোলেগেছে, অনেকেই বলে যাচ্ছেন তানজিন তিশা নাটকে বিরক্ত করছেন, আমি এটার বিরুদ্ধে ভালো গল্প হলে তিশাও ভালো অভিনয় দিতে জানে। অন্যান্য কলাকৌশল ভালো, সবচেয়ে ভালো চিত্রনাট্যটা কোনো কমতি নেই।
ভুলের জায়গা তেমন নেই, ডাইলগ ডেলিভারি মুগ্ধ হওয়ার মতো।

এই নাটকের গোল সেট চিত্রনাট্যই করে দিয়েছেন। মিউজিক, লোকেশন সুন্দর ছিলো। যদি নাটকে এওয়ার্ড দেওয়া হয়। নিসন্দেহে ‘ভালোবাসার রং থাকেনা’ এওয়ার্ড পাওয়ার মতো একটি ভালো মানের নাটক।

লিখেছেন, Mizanur Rahman Arian

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *